ব্রেকিং:
বিয়ে বাড়িতে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ! চামড়া সংরক্ষণ যথাযথভাবে করা হয়েছে: শিল্প সচিববঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড তদন্তে কমিশন গঠনের দাবি তথ্যমন্ত্রীর ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ’ ‘চিকিৎসকদের উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাঠানো হবে’

রোববার   ২৫ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ১০ ১৪২৬   ২৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

আজকের ময়মনসিংহ
১৫

হার্ট অ্যাটাক প্রতিরোধে বাদাম

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০ আগস্ট ২০১৯  

হার্ট ভালো থাকলে একজন মানুষের স্বাস্থ্য নিয়ে আর বেশি কিছু চিন্তার দরকার হয় না। আমরা প্রতিদিন কী ধরনের খাবার খাই বা না খাই তার ওপরই নির্ভর করে হার্টের ভালো থাকা বা খারাপ থাকা। মানবদেহের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলো হলো হৃদপিণ্ড, ফুসফুস, লিভার, কিডনি এবং মস্তিষ্ক। এই অঙ্গগুলোর কোনো একটি অঙ্গও যদি সামান্যতম ক্ষতিগ্রস্ত বা দুর্বল হয় তাহলেই আপনার স্বাস্থ্যের বড় ধরনের কোনো সমস্যা হতে পারে। এমনই একটি অঙ্গ হলো হার্ট।
সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতিদিন যদি নিয়ম করে বাদাম খাওয়া যায় তাহলে হার্ট অ্যাটাক প্রতিরোধ হয়। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক কেন এবং কীভাবে বাদাম হার্ট অ্যাটাক প্রতিরোধ করে।

বাদাম খুবই পুষ্টিকর এবং অনেক স্বাস্থ্যকর খাবারের চেয়ে বেশি সুস্বাদুও বটে। কাঁচা বা ভেজেও খাওয়া যায় বাদাম। হিজলি বাদাম, কাজুবাদাম, চীনা বাদাম, পিস্টাশিও, আখরোট এবং চেসনাট কয়েকটি জনপ্রিয় বাদাম। প্রতিটি বাদামেরই আছে ভিন্ন ভিন্ন স্বাস্থ্যগত উপকারিতা। তবে সবগুলো বাদামেরই আছে একটি বিশেষ উপকারিতা।

যেমন- কাজুবাদাম খেলে মাংসপেশী সুগঠিত হয় আর পিস্টাশিও খেলে ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকে। তবে দুটো বাদামই আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে আরো শক্তিশালী করবে এবং শরীরকে রোগমুক্ত রাখবে।

জানেন কি, হার্ট অ্যাটাক বা হৃদরোগ হয় হৃদপিণ্ডের মাংসপেশিতে রক্তের প্রবাহ বাধাগ্রস্ত হওয়ার কারণে বা বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণে। কারণ হৃদপিণ্ডে রক্তচলাচল বন্ধ হয়ে গেলে তাতে অক্সিজেন ও রক্তের ঘাটতি দেখা দেয় এবং তা কাজ করা বন্ধ করে দেয়। অনেক ক্ষেত্রেই হার্ট অ্যাটাকের কারণে তাৎক্ষণিক মৃত্যু হতে পারে। হার্ট অ্যাটাক হয় সাধারণত, রক্তের শিরা-উপশিরায় চর্বি এবং কোলেস্টেরল জমে অবরোধ তৈরি করলে। যা হার্টে অক্সিজেনযুক্ত রক্ত সরবরাহ বন্ধ করে দেয়।

সম্প্রতি দ্য জার্নাল অফ দ্য আমেরিকান কলেজ অফ কার্ডিওলোজিতে বলা হয়, প্রতিদিন যদি অন্তত এক মুঠো বাদাম খাওয়া যায় তাহলে অকালে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমে। গবেষণায় বলা হয়, বাদামে আছে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড এবং ভিটামিন ই। এই দুটি উপাদান প্রাকৃতিকভাবেই দেহে কোলোস্টেরলের মাত্রা কমাতে সক্ষম এবং ধমনীতে যে চর্বি ও কোলেস্টেরলের আস্তরণ পড়ে তা পরিষ্কার করতে সক্ষম। ফলে হার্টে অক্সিজেনযুক্ত রক্ত চলাচল আরো সহজ হয়ে আসে। এর ফলে হার্টঅ্যাটাকসহ অন্যান্য হৃদরোগও প্রতিরোধ হয়। সুতরাং, অকালে হার্ট অ্যাটাকে মরতে না চাইলে প্রতিদিন অন্তত একমুঠো বাদাম খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলন!

আজকের ময়মনসিংহ
আজকের ময়মনসিংহ