ব্রেকিং:
বিয়ে বাড়িতে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ! চামড়া সংরক্ষণ যথাযথভাবে করা হয়েছে: শিল্প সচিববঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড তদন্তে কমিশন গঠনের দাবি তথ্যমন্ত্রীর ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ’ ‘চিকিৎসকদের উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাঠানো হবে’

রোববার   ২৫ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ৯ ১৪২৬   ২৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

আজকের ময়মনসিংহ
৬২

স্ত্রীর সহায়তায় এগারো বছরের শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ, ধর্ষক আটক

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৯ জুলাই ২০১৯  

ময়মনসিংহের ফুলপুরে স্ত্রীর সহায়তায় এগারো বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলার পর দুলাল ফকির (৬০) নামে এক বৃদ্ধকে আটক করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় জড়িত দুলাল ফকিরের স্ত্রী মদিনা খাতুন পলাতক রয়েছে।

 

রবিবার (২৮ জুলাই) দুপুরে ঘটনার শিকার শিশুর বাবা বাদী হয়ে ফুলপুর থানায় ধর্ষক দুলাল ফকির ও তার স্ত্রী মদিনা খাতুনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করলে ধর্ষক বৃদ্ধ দুলাল ফকিরকে গ্রেফতার করা হয়। তার আগে শনিবার (২৭ জুলাই) ফুলপুর উপজেলার রূপসী ইউনিয়নের বাট্রা গ্রামে দুলাল ফকিরের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

 

ঘটনার শিকার শিশুটির পরিবারের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, শনিবার বাট্রা গ্রামের ওই দিন মজুরের কন্যা শিশুকে কৌশলে ডেকে নিয়ে স্ত্রীর সহায়তায় নিজ বসত ঘরে ধর্ষণ করে বৃদ্ধ দুলাল মিয়া। এ সময় শিশুটি চিৎকার করতে চাইলে তার মুখ চেপে ধরে এবং হত্যার হুমকী দেয় ধর্ষক। কিন্তু শিশুটির চিৎকার ও আর্তনাদে পার্শ্ববর্তী বাড়ির লোকজন টের পেয়ে তার বাবা-মাকে খবর দিলে ধর্ষণকারীর বসতঘর থেকে রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে তারা।

 

পরে ঘটনার শিকার ওই শিশুকে প্রথমে ফুলপুর পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে শিশুটি মমেক হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।

 

ওই শিশুটিকে ধর্ষণের সময় স্ত্রী মদিনা থাতুন তার স্বামী দুলাল ফকিরকে সহায়তা করেছেন বলে শিশুটির পরিবার পুলিশকে জানায়।

 

ফুলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমারত হোসেন গাজী জানান, এ ঘটনায় মামলার পর পরই আসামি দুলাল ফকিরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অপর আসামী মদিনা খাতুন পলাতক থাকলেও তাকে দ্রুত গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

আজকের ময়মনসিংহ
আজকের ময়মনসিংহ
এই বিভাগের আরো খবর