ব্রেকিং:
বিয়ে বাড়িতে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ! চামড়া সংরক্ষণ যথাযথভাবে করা হয়েছে: শিল্প সচিববঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড তদন্তে কমিশন গঠনের দাবি তথ্যমন্ত্রীর ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ’ ‘চিকিৎসকদের উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাঠানো হবে’
  • মঙ্গলবার   ০২ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৯ ১৪২৭

  • || ১০ শাওয়াল ১৪৪১

আজকের ময়মনসিংহ
২১৩

‘সুপার পিঙ্ক মুন’ দেখা যাবে ৮ এপ্রিল

আজকের ময়মনসিংহ

প্রকাশিত: ৫ এপ্রিল ২০২০  

চলতি বছরের বৃহত্তম গোলাপি চাঁদ (সুপার পিঙ্ক মুন) দেখা যাবে এপ্রিলেই। ৮ এপ্রিল বাংলাদেশ সময় সকাল ৮টা ৩৫ মিনিটে দেখা যাবে এই নান্দনিক দৃশ্য।

পৃথিবী এবং চাঁদের মধ্যবর্তী গড় দূরত্ব ৩ লাখ ৮৪ হাজার ৪০০ কিলোমিটার। তবে এদিন চাঁদের গোলাপি আভা দেখা যাবে পৃথিবী থেকে ৩ লাখ ৫৬ হাজার ৯০৭ কিলোমিটার দূর থেকে। অর্থাৎ ওইদিন পৃথিবী থেকে চাঁদের দূরত্ব কমে যাবে ২৭ হাজার ৪৯৩ কিলোমিটার।

চাঁদ দেখতে যারা ভালোবাসেন, তাদের জন্য এই সুপারমুন একটু বিশেষ। চলতি বছরের উজ্জ্বলতম এবং বৃহত্তম পূর্ণিমা হতে চলেছে এইটি। এপ্রিলের এই সুপারমুনকে ডাকা হচ্ছে গোলাপি চাঁদ নামে।

সুপারমুন কী

সুপারমুনের (supermoon) কক্ষপথ পৃথিবীর নিকটতম। আমাদের গ্রহ থেকে এই নিকটতম দূরত্বের কারণেই চাঁদকে অনেক বড় এবং উজ্জ্বল দেখায়। এই মাসের সুপার পিঙ্ক মুন আমাদের গ্রহ থেকে ৩ লাখ ৫৬ হাজার ৯০৭ কিলোমিটার দূরে থাকছে।

তবে পূর্ণিমা হলেই যে সুপারমুন হবে, তা কিন্তু নয়। কারণ চাঁদ পৃথিবীর চারপাশে একটি উপবৃত্তাকার কক্ষপথে ঘোরে। আমাদের গ্রহ থেকে আরও অনেক দূরে থাকলেও পূর্ণিমার পূর্ণ চাঁদ দেখা যেতে পারে।
যুক্তরাষ্ট্রের মিডিয়া ওয়েবসাইট সিনেট-এর একটি প্রতিবেদন অনুযায়ী, ৮ এপ্রিলের সুপারমুন এ বছরের সবচেয়ে বড় এবং উজ্জ্বলতম সুপারমুন হবে।

একে গোলাপি চাঁদ বলার কারণ

পূর্ণিমার চাঁদের নামকরণের বিষয়টি সাধারণত আমেরিকান অঞ্চল এবং ঋতুগুলোর ওপর নির্ভর করে। প্রতিবেদনের তথ্যানুযায়ী, ‘গোলাপি চাঁদ' নামটি গোলাপি ফুলের (Phlox subulata) নামের ওপর ভিত্তি করে দেয়া। এই ফুল উত্তর আমেরিকার পূর্ব দিকে বসন্তকালে ফোটে এবং এটি মোটেও চাঁদের রঙ নয়। পুরো গোলাকার চাঁদকে স্প্রাউটিং গ্রাস মুন, এগ মুন এবং ফিশ মুন নামেও ডাকা হয়।

২০২০ সালের শেষ সুপারমুন কখন দেখা গিয়েছিল

২০২০ সালের শেষ সুপারমুন ৯ মার্চ থেকে ১১ মার্চের মধ্যে দেখা গিয়েছিল। মার্চের সুপারমুনকে ডাকা হয়েছিল ‘সুপার ওয়ার্ম মুন (Worm Moon)’ নামে।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর