ব্রেকিং:
বিয়ে বাড়িতে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ! চামড়া সংরক্ষণ যথাযথভাবে করা হয়েছে: শিল্প সচিববঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড তদন্তে কমিশন গঠনের দাবি তথ্যমন্ত্রীর ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ’ ‘চিকিৎসকদের উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাঠানো হবে’
  • বুধবার   ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||

  • আশ্বিন ১৫ ১৪২৭

  • || ১২ সফর ১৪৪২

আজকের ময়মনসিংহ
৫৪৪

তথ্য গোপনের মামলা

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বাবরের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ

আজকের ময়মনসিংহ

প্রকাশিত: ১৫ জানুয়ারি ২০১৯  

একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জন এবং তথ্য গোপনের মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ করেছে আদালত। আজ মঙ্গলবার ঢাকার ৭ নম্বর বিশেষ জজ আদালতে ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা মো. আতাউর রহমান এ সাক্ষ্য দেন।

বিচারক মো. শহিদুল ইসলাম এ সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণের পর আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য করেন। সাক্ষ্যগ্রহণকালে কারাগারে থাকা বিএনপির সাবেক এ নেতাকে আদালতে হাজির করা হয়। এ নিয়ে মামলায় ৬ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হলো।

এদিকে আজ দশ ট্রাক অস্ত্র মামলায়ও নিম্ন আদালতের দেওয়া মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত এ আসামি গুরুতর অসুস্থ মর্মে মেডিকেল বোর্ড গঠন করে তার চিকিৎসার আবেদন করা হয়। বিচারক শুনানি শেষে এ বিষয়ে জেল কোডের বিধান অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন।

২০০৭ সালের ২৮ মে বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে যৌথবাহিনীর হাতে আটক হয় সাবেক এ স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর। তার বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জন ও তথ্য গোপনের মামলাটি ২০০৮ সালের ১৩ জানুয়ারি রমনা থানায় দায়ের করা হয়। তদন্ত শেষে ওই বছরই দুদকের উপ-সহকারী পরিচালক রূপক কুমার সাহা চার্জশিট দাখিল করেন।

চার্জশিটে বাবরের বিরুদ্ধে ৭ কোটি ৫ লাখ ৯১ হাজার ৮৯৬ টাকার অবৈধ সম্পদ রাখার অভিযোগ করা হয়েছে। তিনি দুদকে ৬ কোটি ৭৭ লাখ ৩১ হাজার ৩১২ টাকার সম্পদের হিসাব দাখিল করেছিলেন। বাবর অবৈধ সম্পদের মধ্যে প্রাইম ব্যাংক এবং এইচএসবিসি ব্যাংক দুইটি এফডিআর-এ ৬ কোটি ৭৯ লাখ ৪৯ হাজার ২১৮ টাকা এবং বাড়ি নির্মাণ বাবদ ২৬ লাখ ৪২ হাজার ৬৭৮ টাকা গোপনের কথা উল্লেখ করা হয়।

২০০৮ সাল থেকে কারাগারে থাকা এ আসামির একটি অস্ত্র মামলায় ২০০৭ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর তার ১৭ বছর কারাদণ্ড দেন আদালত। এরপর ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলায় এবং ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় ফাঁসির আদেশ হয়। তার বিরুদ্ধে সাব্বির হত্যা মামলার বসুন্ধরার শাহআলম পরিবারকে বাঁচাতে ঘুষ গ্রহণে দুর্নীতি এবং আয়কর ফাঁসির মামলাও আদালতে বিচারাধীন রয়েছে।

অপরাধ বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর