ব্রেকিং:
বিয়ে বাড়িতে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ! চামড়া সংরক্ষণ যথাযথভাবে করা হয়েছে: শিল্প সচিববঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড তদন্তে কমিশন গঠনের দাবি তথ্যমন্ত্রীর ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ’ ‘চিকিৎসকদের উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাঠানো হবে’

শনিবার   ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৫ ১৪২৬   ২১ মুহররম ১৪৪১

আজকের ময়মনসিংহ
১২৭

ময়মনসিংহ-১ আসনে

বিএনপির প্রার্থী কে

অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৪ ডিসেম্বর ২০১৮  

ময়মনসিংহ-১ (হালুয়াঘাট-ধোবাউড়া) আসনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেআওয়ামী লীগের প্রার্থী সাংসদ জুয়েল আরেং নৌকার পক্ষে ব্যাপক হারে নির্বাচনী সভা ও গণসংযোগ করে যাচ্ছেন। কিন্তু বিএনপি থেকে এখনো প্রার্থী চূড়ান্ত না হওয়ায় নেতা, কর্মী, সমর্থক ও ভোটাররা নীরব।

গতকাল শনিবার জুয়েল আরেং ধোবাউড়া ও হালুয়াঘাট পৌরসভায় নির্বাচনী সভা করেছেন। কিন্তু বিএনপির একক প্রার্থী না থাকায় আফজাল এইচ খান ও আলী আজগর ধানের শীষের পক্ষে এককভাবে ভোটারদের কাছে প্রচারণা চালাচ্ছেন। তবে বিএনপির প্রার্থী কে হচ্ছেন, ভোটের বাকি সাত দিন থাকলেও জানতে না পারায় বিএনপির ভোটাররা মূলত নীরব।

দলীয় সূত্র ও কয়েকজন ভোটারের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, হালুয়াঘাট-ধোবাউড়া আসনের বর্তমান সাংসদ জুয়েল আরেং এবারও নৌকার প্রার্থী হয়েছেন। তিনি প্রতিদিন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত নৌকার পক্ষে নির্বাচনী সভা, সমাবেশ, উঠান বৈঠক ও গণসংযোগ করে যাচ্ছেন। নৌকার পক্ষে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মী একযোগে কাজ করছেন। নৌকার পক্ষে খণ্ড খণ্ড মিছিল, স্লোগান চলছে প্রতিনিয়ত এবং মাইকে চলছে দেশের উন্নয়নের নানা গান। ফলে দুই উপজেলার ভোটারদের মধ্যে নৌকার প্রচারণা সাড়া ফেলেছে।

এদিকে বিএনপি থেকে এ আসনে এখনো চূড়ান্ত প্রার্থী নির্ধারিত না হওয়ায় দুই উপজেলা বিএনপির নেতা-কর্মী ও ভোটাররা নীরব ভূমিকা পালন করছেন। তবে মনোনয়ন দৌড়ে উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও হালুয়াঘাট উপজেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক আলী আজগর এবং খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা সদস্য ও সাবেক সাংসদ আফজাল এইচ খান রয়েছেন। বিএনপির দুই প্রার্থী চূড়ান্ত মনোনয়ন পেতে হাইকোর্টের আপিল বিভাগে আবেদন করেছেন। তবে বিএনপির দুই প্রার্থী নিজ নিজ এলাকায় নিজের বলয়ে গণসংযোগ করছেন। চূড়ান্ত প্রার্থী নিয়ে দ্বিধা থাকায় বিএনপির নেতা-কর্মী ও ভোটাররা এখন খানিকটা হতাশ হয়ে পড়েছেন।

বাহাইতলা গ্রামের ভোটার মো. হারেজ উদ্দিন প্রথম আলোকে বলেন, নির্বাচনের আর বাকি আছে সাত দিন। নৌকার পক্ষে জুয়েল আরেং মনোনয়ন পেয়েই নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন। কিন্তু বিএনপির চূড়ান্ত প্রার্থী না হওয়ায় তাঁরা কোনো সভা–সমাবেশ করতে পারছেন না। এতে ধানের শীষের প্রার্থীর জন্য ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। পক্ষান্তরে, আওয়ামী লীগের প্রার্থীর পক্ষে ভোটে অনেক সুবিধা হলো।

এ ব্যাপারে হালুয়াঘাট উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক নাদিম আহম্মেদ প্রথম আলোকে বলেন, নির্বাচনের তো আর মাত্র কয়েক দিন বাকি। কিন্তু প্রার্থীর ব্যাপারে এখনো কোনো সুরাহা হয়নি। আফজাল এইচ খান ও আলী আজগর দুই প্রার্থী এককভাবে এলাকায় গণসংযোগ করছেন। কিন্তু ভোটের দিন চলে এলেও দলের চূড়ান্ত প্রার্থী না থাকায় দুই উপজেলার বিএনপির নেতা-কর্মী ও ভোটাররা নিষ্ক্রিয় রয়েছেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে হালুয়াঘাট পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক খায়রুল আলম ভুইয়া প্রথম আলোকে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে ভোটাররা নৌকায় ভোট দেবেন। বিভিন্ন সমাবেশ, পথসভা, উঠান বৈঠক ও গণসংযোগে ভোটাররা নৌকায় ভোট দিতে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এ আসনে জুয়েল আরেংয়ের কোনো বিকল্প নেই। আশা করি ভোটের দিন ভোটাররা নৌকায় ভোট দিয়ে বিপুল ভোটে জুয়েল আরেংকে পুনরায় নির্বাচিত করবেন।’

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা সুভাষ চন্দ্র বিশ্বাস প্রথম আলোকে বলেন, ‘ময়মনসিংহ-১ আসনে আলী আজগরকে ধানের শীষ প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু অসমর্থিত সূত্রে জানতে পারলাম, এ আসনে প্রার্থী পরিবর্তন করে আফজাল এইচ খানকে দিতে পারেন। তবে এখনো কোনো নির্দেশনার কাগজপত্র পাওয়া যায়নি।’

আজকের ময়মনসিংহ
আজকের ময়মনসিংহ
এই বিভাগের আরো খবর