ব্রেকিং:
বিয়ে বাড়িতে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ! চামড়া সংরক্ষণ যথাযথভাবে করা হয়েছে: শিল্প সচিববঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড তদন্তে কমিশন গঠনের দাবি তথ্যমন্ত্রীর ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ’ ‘চিকিৎসকদের উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাঠানো হবে’

শনিবার   ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৫ ১৪২৬   ২১ মুহররম ১৪৪১

আজকের ময়মনসিংহ
২২৪

প্রেমিকার লাশ রেখে প্রেমিকের পলায়ন

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৩০ আগস্ট ২০১৯  

ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সাবিনা (১৭) নামের এক তরুণীর লাশ ফেলে রেখে কথিত প্রেমিক কামরুল পালিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় কথিত প্রেমিক কামরুলের মা ফিরোজা খাতুনসহ তিনজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ। 

বুধবার (২৮ আগস্ট) রাত সাড়ে ১১টার দিকে ফুলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য মমেক মর্গে প্রেরণ করা হবে বলে পুলিশ জানায়।

ফুলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সূত্রে জানা যায়, বুধবার রাতে অসুস্থ তরুণী সাবিনাকে ফুলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে কামরুল, তার বাবা আব্দুল বারেক, মা ফিরোজা খাতুনসহ আরও কয়েকজন। কিন্তু হাসপাতালে নেওয়ার পর পরই সাবিনা মারা গেলে প্রেমিকের মা ফিরোজা খাতুনকে রেখে প্রেমিক কামরুলসহ অন্যরা পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ খবর পেয়ে হাসপতাল থেকে প্রেমিকের মা ফিরোজা খাতুনসহ তিনজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলার রহিমগঞ্জ ইউনিয়নের মাটিচাপুর গ্রামের আব্দুল বারেকের ছেলে কামরুল ও পাশ্ববর্তী হালুয়াঘাট উপজেলার নড়াইল ইউনিয়নের কুমুরিয়া (বস্তিপাড়া) গ্রামের লিয়াকত আলী খাঁর মেয়ে সাবিনা গাজীপুর কোণাপাড়া রোডে নাওজোড়া এলাকায় ‘মাস্টার সেন্ট’ নামে একটি গার্মেন্টসে কাজ করত। দুইজন গার্মেন্টসে কাজ করার সুবাদে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক হয়। 

সাবিনার বাবা ভ্যানচালক লিয়াকত আলী খাঁ বলেন, ‘তার স্ত্রী বেগম, বড় মেয়ে গার্মেন্টসকর্মী রুনা ও দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী বড় ছেলে কামালকে নিয়ে এক সঙ্গে গাজীপুরের তেলিপাড়ায় থাকত সাবিনা। কিন্তু সাবিনার প্রেমের বিষয়টি আমারা কেউ জানতাম না।’

এ সময় পরিবারের অন্য সদস্যরা জানান, অন্যান্য দিনের মতো মঙ্গলবার (২৭ আগস্ট) সকালে সাবিনা গার্মেন্টসে যায়। কিন্তু নির্ধারিত সময়ে বাসায় না ফেরায় তাকে খোঁজাখুঁজি করতে থাকি। এরই মধ্যে বুধবার মধ্য রাতে ফুলপুর থানা থেকে সাবিনার মৃত্যু সংবাদ পান তারা। 

ফুলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) ইমারত হোসেন গাজী জানান, প্রাথমিকভাবে সাবিনার লাশে কোনো আঘাত বা চিহ্ন খুঁজে পাওয়া যায়নি। মরদেহের মেডিকেল রিপোর্টের পর প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কামরুলের মা ফিরোজা খাতুনসহ তিনজনকে আটক করা হয়েছে বলে জানান পুলিশের ওই কর্মকর্তা।

আজকের ময়মনসিংহ
আজকের ময়মনসিংহ
এই বিভাগের আরো খবর