ব্রেকিং:
বিয়ে বাড়িতে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ! চামড়া সংরক্ষণ যথাযথভাবে করা হয়েছে: শিল্প সচিববঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড তদন্তে কমিশন গঠনের দাবি তথ্যমন্ত্রীর ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ’ ‘চিকিৎসকদের উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাঠানো হবে’
  • সোমবার   ০১ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৭ ১৪২৭

  • || ০৯ শাওয়াল ১৪৪১

আজকের ময়মনসিংহ
২০৭

পাপিয়া ইস্যুতে কোটি টাকার বিনিময়ে যুগান্তরের মিথ্যাচার!

আজকের ময়মনসিংহ

প্রকাশিত: ৪ মার্চ ২০২০  

রাজনৈতিক পরিচয় দিয়ে অপকর্ম করে বেড়ানোর দায়ে আটক শামীমা নূর পাপিয়ার সাথে রাষ্ট্রের দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের জড়িয়ে মিথ্যা, বিভ্রান্তিকর ও উদ্দেশ্যমূলক তথ্য ছড়াচ্ছে দেশের প্রথম সারির পত্রিকা দৈনিক ‘যুগান্তর’। জানা গেছে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে পাপিয়া ইস্যুতে সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে একটি মহলের হয়ে কাজ করছে বিতর্কিত এই পত্রিকাটি।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, সরকারবিরোধী একটি মহলের কাছ থেকে ৫ কোটি টাকা উৎকোচ গ্রহণ করে আটক পাপিয়ার এসকর্ট তথা অবৈধ ব্যবসার সাথে সরকারের গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী, আমলা, নেতা ও স্বনামধন্য ব্যবসায়ীদের জড়িয়ে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন তথ্য দিয়ে সংবাদ প্রচার করছে যুগান্তর। যদিও আটক পাপিয়া আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হেফাজতে তার অবৈধ ব্যবসার সাথে জড়িত রয়েছেন এমন কারো নাম বা তথ্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে দেননি বলে জানা গেছে। অথচ সেখানে যুগান্তর মিথ্যা তথ্যের ভিত্তিতে রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে নিয়োজিত ব্যক্তিদের পাপিয়ার অবৈধ ব্যবসার সাথে জড়িয়ে সংবাদ পরিবেশন করছে, যা বিভ্রান্তিকর ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলেই প্রতীয়মান হচ্ছে। পাশাপাশি যুগান্তরের অনৈতিক উদ্দেশ্যও পরিষ্কার হচ্ছে দেশবাসীর সামনে।

এদিকে সরকার ও রাষ্ট্রবিরোধী কিছু মহলের ইন্ধন ও আর্থিক প্রণোদনায় যুগান্তর পাপিয়ারে সাথে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের জড়িয়ে যেসব মুখরোচক ও বিভ্রান্তিকর সংবাদ পরিবেশন করছে, সেটির পেছনে সঙ্ঘবদ্ধ একটি চক্র জড়িত বলেই মনে করছেন রাজনীতি সচেতনরা।

গোপন একটি সূত্রের বরাতে জানা গেছে, শুধু পাপিয়া নয় অতীতে বিভিন্ন ইস্যুকে পুঁজি করে সরকার ও দায়িত্বশীল সংশ্লিষ্টদের বদনাম করতে যুগান্তর বেশ কিছু ধরেই নানা মিথ্যা এবং উসকানিমূলক তথ্য প্রচার করে মত প্রকাশের স্বাধীনতার নামে রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্র করে আসছে যুগান্তর। বিশেষ করে দুর্নীতির দায়ে দণ্ডিত বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে অতিরঞ্জিত করে সংবাদ প্রচার করার অভিযোগ রয়েছে যুগান্তরের বিরুদ্ধে। পাশাপাশি নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, জাসদ নেতা রব ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের সাথে গোপন বৈঠক করারও অভিযোগ রয়েছে পত্রিকাটির সম্পাদক ও রিপোর্টারদের বিরুদ্ধে।

তাই দীর্ঘমেয়াদি ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে এবার পাপিয়াকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করতে নানা কুরুচিপূর্ণ সংবাদ পরিবেশন করছে যুগান্তর। রাষ্ট্রের দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের পাপিয়ার অপকর্মের সাথে জড়িয়ে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিল করতে একটি মহলের মুখপাত্র হিসেবে কাজ করছে যুগান্তর। বিনিময়ে তারা পাচ্ছে আর্থিক প্রণোদনা। যার অংশ হিসেবে সম্প্রতি যুগান্তর পত্রিকার সম্পাদক ও কয়েকজন রিপোর্টারদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে সব মিলিয়ে ৫ কোটি টাকা লেনদেনের তথ্য পেয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। তাই যুগান্তরের এমন ষড়যন্ত্র ও অবৈধ আর্থিক লেনদেনের উৎস এবং উদ্দেশ্যের খোঁজে মাঠে নেমেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। তদন্তে রাষ্ট্রবিরোধী কোন ষড়যন্ত্রের কোন প্রমাণ পেলে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানা গেছে।

প্রসঙ্গত, পাপিয়া কেলেঙ্কারির সাথে জড়িত থাকার সন্দেহে বিএনপির একাধিক প্রভাবশালী নেতা, পত্রিকার সম্পাদক, বিএনপিপন্থী  বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, সাংবাদিক নেতাসহ ২১ জনের নাম উঠে এসেছে বিভিন্ন গণমাধ্যমে।

রাজনীতি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর