ব্রেকিং:
বিয়ে বাড়িতে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ! চামড়া সংরক্ষণ যথাযথভাবে করা হয়েছে: শিল্প সচিববঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড তদন্তে কমিশন গঠনের দাবি তথ্যমন্ত্রীর ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ’ ‘চিকিৎসকদের উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাঠানো হবে’

শনিবার   ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৫ ১৪২৬   ২১ মুহররম ১৪৪১

আজকের ময়মনসিংহ
১৬

দীর্ঘদিন হলুদ খেলে কিডনিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে!

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৪ আগস্ট ২০১৯  

রান্নাঘরের এই উপাদনটি যুগ যুগ ধরে আয়ুর্বেদিক চিকিৎসাশাস্ত্রে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। ইদানীং অনেক রোগের চিকিৎসায় চিকিৎসকরা পথ্য হিসেবে হলুদ খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। বিশেষজ্ঞদের মতে, দিনে ৪০০ থেকে ৬০০ মিলিগ্রাম হলুদ খাওয়া যেতে পারে। কিন্তু অত হিসেব করে, মেপে মেপে কে আর হলুদ খায়! 
৪০০ থেকে ৬০০ মিলিগ্রামের চেয়ে বেশি হলুদ খেলে কি হয় জানেন? বিশেষজ্ঞদের মতে, অতিরিক্ত পরিমাণে হলুদ খেলে তা আমাদের শরীরের পক্ষে মারাত্মক ক্ষতিকর হয়ে দাঁড়াতে পারে। রয়েছে পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার ভয়। আসুন এ সম্পর্কে সবিস্তারে জেনে নেয়া যাক-

১) দীর্ঘদিন ধরে অতিরিক্ত পরিমাণে হলুদ খেলে ডায়েরিয়া, পেটের নানা সমস্যা, বমি বমি ভাব বা অতিরিক্ত ঘাম হতে পারে।

২) অতিরিক্ত হলুদ খেলে রক্ত সহজে জমাট বাঁধতে পারে না।

৩) দীর্ঘদিন ধরে হলুদ খেলে কিডনিতে পাথর হতে পারে। অনেক সময় হলুদ অক্সালেটরের স্বাভাবিক বিপাক বিঘ্নিত করে দেয়। এর ফলে ওই অক্সালেট কিডনিতে পাথর তৈরি করতে পারে।

৪) এটি মেন্সট্রুয়াল ফ্লো বাড়িয়ে দেয়। কারণ, হলুদ ইউটেরাইন স্টিমুল্যান্ট হিসাবে কাজ। তাই গর্ভবতী বা নতুন মায়েদের হলুদ কম খাওয়াই ভাল।

৫) যারা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত, অতিরিক্ত পরিমাণে হলুদ খেলে তাদের ব্লাড সুগারের মাত্রা আচমকাই কমে যেতে পারে। 
৬) অতিরিক্ত পরিমাণে হলুদ খাওয়ার অভ্যাস অ্যান্টিবায়োটিক বা অন্যান্য ওষুধের কার্যকারীতা কমিয়ে দিতে পারে।

আজকের ময়মনসিংহ
আজকের ময়মনসিংহ