ব্রেকিং:
বিয়ে বাড়িতে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণ! চামড়া সংরক্ষণ যথাযথভাবে করা হয়েছে: শিল্প সচিববঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড তদন্তে কমিশন গঠনের দাবি তথ্যমন্ত্রীর ‘এখনো ষড়যন্ত্র চলছে, বাতাসে চক্রান্তের গন্ধ’ ‘চিকিৎসকদের উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাঠানো হবে’
  • বুধবার   ০৩ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২০ ১৪২৭

  • || ১১ শাওয়াল ১৪৪১

আজকের ময়মনসিংহ
৬৬১

চান্দিনায় কওমী মাদ্রাসায়

ছাত্র বলাৎকার, শিক্ষক গ্রেফতার

আজকের ময়মনসিংহ

প্রকাশিত: ১৫ নভেম্বর ২০১৮  

কুমিল্লার চান্দিনায় আট বছরের শিশু ছাত্রকে বলাৎকারের অভিযোগে কওমী মাদ্রাসা শিক্ষক মামুনুর রশিদকে (৩৫) আটক করে পুলিশে দিয়েছে এলাকাবাসী। বুধবার সন্ধ্যায় অভিযুক্ত ওই শিক্ষককে উপজেলার মাইজখার ইউনিয়নের আলীকামোড়া দারুল কোরআন কমপ্লেক্স থেকে আটক করার পর রাত ১২টায় তাকে পুলিশে দেয়া হয়।

আটক মাদ্রাসা শিক্ষক মামুনুর রশিদ চাঁদপুর জেলার শাহরাস্তি উপজেলার কৃষ্ণপুর গ্রামের মৃত শরফত আলীর ছেলে। আহত মাদ্রাসা ছাত্র সায়মন হোসেন উপজেলার আলীকামোড়া গ্রামের মনির হোসেনের ছেলে। সে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিত্সাধীন। এ ঘটনায় চান্দিনা থানায় মামলা দায়ের করেছে আহত শিক্ষার্থীর বাবা মনির হোসেন।

মনির হোসেন অভিযোগ করেন, গত ১২ নভেম্বর ওই মাদ্রাসায় চাকরি নেয় শিক্ষক মামুনুর রশিদ। কওমী মাদ্রাসা হিসেবে সকল ছাত্র মাদ্রাসায় থাকে। বুধবার ভোরে মামুনুর রশিদ ওই শিক্ষার্থীকে বলাত্কার করে। এতে মারাত্মক আহত অবস্থায় তাকে চান্দিনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়।

এদিকে ঘটনাটি জানাজানি হলে স্থানীয় বিক্ষুদ্ধ এলাকাবাসী মাদ্রাসা থেকে শিক্ষক মামুনুর রশিদকে আটক করে গণধোলাই দিয়ে মাথার চুল কেটে দেয়। রাতে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিগণ তাকে পুলিশে দেয়।

এ ব্যাপারে চান্দিনা থানার ওসি মো. আবুল ফয়সল জানান, অভিযুক্ত ওই শিক্ষক ঘটনা স্বীকার করেছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা নেয়া হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অপরাধ বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর